ঢাকারবিবার , ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
  • অন্যান্য
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মা-বাবার প্রতি সন্তান প্রতিপালনে ইসলামের ৩ নির্দেশনা

অনলাইন ডেস্ক
ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২৩ ৭:২৩ পূর্বাহ্ণ । ৬৬ জন
ছবি: সংগৃহীত

সন্তানের ঈমান-আকিদা, আমল-আখলাক ও জীবনযাপনের প্রতিটি বিচ্যুতির বিষয়ে প্রত্যেক মা-বাবাকে পরকালে জবাবদিহির সম্মুখীন করা হবে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, প্রত্যেক ব্যক্তিই দায়িত্বশীল এবং প্রত্যেকেই তার অধীনদের ব্যাপারে জিজ্ঞাসিত হবে। (বুখারি, হাদিস : ৭১৩৮)

দায়িত্বসচেতন মা-বাবার কর্তব্য হলো শৈশব থেকেই সন্তানকে ধর্মীয় অনুশাসনে গড়ে তোলা।

নিম্নে সন্তান প্রতিপালনে মা-বাবার করণীয় সম্পর্কে আলোচনা করা হলো—১. সন্তানের জন্য দোয়া করা : সন্তানকে সুসন্তান হিসেবে গড়ে তুলতে তাকে একটি পবিত্র পরিবেশ দেওয়ার পাশাপাশি তার জন্য আল্লাহর কাছে বেশি বেশি দোয়া করতে হবে। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ সন্তানের জন্য করণীয় বহু দোয়া শিক্ষা দিয়েছেন, তন্মধ্যে অন্যতম একটি হলো, ‘হে আমাদের রব! আমাদের জন্য এমন স্ত্রী ও সন্তান-সন্ততি দান করুন, যারা হবে আমাদের জন্য নয়নপ্রীতিকর এবং আমাদের করুন মুত্তাকিদের জন্য অনুসরণযোগ্য।’ (সুরা : ফুরকান, আয়াত : ৭৪)

২. শিশুর কানে তাওহিদ ও রিসালাতের বাণী পৌঁছানো : জন্মের পর সন্তানের প্রথম শ্রবণ যেন তাওহিদ, রিসালাত ও আল্লাহর বড়ত্ব দিয়ে শুরু হয়। নামাজ ও কল্যাণের প্রতি আহ্বানসহ তাওহিদ, রিসালাত ও আল্লাহর বড়ত্ব দিয়ে সাজানো আজান-ইকামতের ধ্বনি শুনিয়ে দেওয়া নবীজির নির্দেশিত একটি পন্থা। হুসাইন (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, যার সন্তান হয়, সে যেন তার ডান কানে আজান এবং বাম কানে ইকামত দেয়। (শুআবুল ঈমান, হাদিস : ৮৬১৯)

জন্ম-পরবর্তী সময় ছাড়াও এই আজান সুযোগে সুযোগে বাচ্চার কানে দেওয়া যেতে পারে। আশা করা যায়, পবিত্র এই কথাগুলো নবজাতকের নিষ্পাপ মনে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলবে। শিশু যখন মুখ ফুটে কথা বলার চেষ্টা করে তখন তাকে কালেমা ও আল্লাহর জিকির শেখানো উচিত। নবীজি (সা.) বলেন, তোমাদের শিশুদের সর্বপ্রথম কালেমা ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ শেখাও। আর যখন মৃত্যুর মুখে উপনীত হয়, তখনো ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ তালকিন (সামনে বারবার উচ্চারণ) করো। কেননা যার প্রথম কথা হবে ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ আর শেষ কথাও হবে ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’, সে যদি হাজার বছরও বেঁচে থাকে, একটি গুনাহ সম্পর্কেও জিজ্ঞাসিত হবে না। (শুআবুল ঈমান, হাদিস : ৮৬৪৯)এ ছাড়া দুধ খাওয়ানোর সময় ‘বিসমিল্লাহ’ জোরে বলা। দৈনন্দিন পঠিত বিভিন্ন দোয়া শিশুকে শুনিয়ে পড়া। বাবা-মায়ের এমন অভ্যাস শিশুর পরিণত জীবনে আমলের ক্ষেত্রে সহজ ও স্বাভাবিক হবে।

৩. সন্তানকে ভালো ও সুন্দর উপদেশ দেওয়া : সন্তান যখন বুঝে উঠতে শুরু করে তখন তাকে বিভিন্ন সৎ উপদেশ দিতে থাকবে। সন্তানকে দেওয়া লোকমান হাকিমের সেই উপদেশ ও শিক্ষাগুলো পবিত্র কোরআন থেকে তুলে ধরা হলো—

একত্ববাদের শিক্ষা : ‘হে পুত্র, আল্লাহর সঙ্গে শরিক করো না। নিশ্চয়ই আল্লাহর সঙ্গে শরিক করা মহা অন্যায়।’ (সুরা : লোকমান, আয়াত : ১৩)

তাকওয়ার শিক্ষা : ‘হে পুত্র! যদি তা (পাপ-পুণ্য) হয় সরিষার দানার সমান এবং তা থাকে পাথরের ভেতর অথবা আসমান জমিনের যেকোনো স্থানে, আল্লাহ তা উপস্থিত করবেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ সূক্ষ্মদর্শী।’ (সুরা : লোকমান : আয়াত : ১৬)

আল্লাহর আনুগত্যের শিক্ষা : ‘হে পুত্র! নামাজ কায়েম করো, মানুষকে সৎকাজের আদেশ করো, মন্দ কাজে বাধা দাও এবং তোমার যে কষ্ট দেখা দেয়, তাতে ধৈর্য ধারণ করো। নিশ্চয়ই এটা অত্যন্ত দৃঢ় ব্যক্তিত্বের পরিচায়ক।’ (সুরা : লোকমান, আয়াত : ১৭)

শিষ্টাচার শিক্ষা : ‘মানুষের সামনে (অহংকারে) নিজ গাল ফুলিয়ো না এবং ভূমিতে দর্পভরে চলিয়ো না। নিশ্চয়ই আল্লাহ কোনো দর্পিত অহংকারীকে পছন্দ করেন না।’ (সুরা : লোকমান, আয়াত : ১৮)

ভদ্রতা ও শালীনতার শিক্ষা : ‘নিজ পদচারণে মধ্যপন্থা অবলম্বন করো এবং নিজ কণ্ঠস্বর সংযত রেখো। নিশ্চয়ই সর্বাপেক্ষা নিকৃষ্ট স্বর গাধাদেরই স্বর।’ (সুরা : লোকমান, আয়াত : ১৯)। আল্লাহ কবুল করুন।