ঢাকাবুধবার , ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
  • অন্যান্য

বেসামাল ব্রয়লার মুরগীর মাংস ও ডিমের বাজার

হাসান শাব্বীর
ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৩ ৭:১৯ পূর্বাহ্ণ । ৩১২ জন
দাম বাড়লেও ক্রেতা কমেছে । গতকাল বিকেলে মধ্যবিত্ত্বের শহুরে বাজার হিসাব খ্যাত বগুড়া রেল লাইন বাজার থেকে তোলা ।

পোল্ট্রী  প্রযুক্তির অভূতপূর্ব উন্নয়নের ফলে ব্রয়লার মুরগির মাংস এখন আগের থেকে অনেক উন্নত,পরিচ্ছন্ন  এবং স্বাস্থ্যসম্মত। দেশি মুরগির মাংসের চেয়ে বেশি জুসি, নরম, চর্বি সমৃদ্ধ হওয়ায় আর দেশি মুরগি থেকে তুলনামূলক ভাবে বেশি সহজলভ্য হওয়ায় ব্রয়লার মুরগির মাংস  ও ডিম  আমাদের খাদ্য তালিকায় একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে। সাধারণ মুরগির থেকে ব্রয়লার মুরগির সবচেয়ে বড় পার্থক্যটি হচ্ছে তাদের লালন-পালন করার পরিবেশে। দেশি মুরগি প্রাকৃতিক পরিবেশে বড় হয়, প্রকৃতি থেকে তাদের খাবার সংগ্রহ করে ,আর সারাদিন আমাদের  চারপাশের প্রকৃতিতেই ঘুরে বেড়ায়। যার ফলাফল হিসেবে দেশি মুরগির মাংসের চর্বির পরিমাণ তুলনামূলকভাবে অনেক কম থাকে এবং মাংসপেশি প্রচুর পরিমাণে থাকে।

সেউজগাড়ী  আমতলায় কাইল্যার বাজারে ক্রেতা আলিফ মাহমুদ আক্ষেপ করে বলেন – “ এভাবে  আর  বেশিদিন থাকলে  ব্রয়লার মুরগীর মাংস  ভাগে কিনতে হবে ; তাছাড়া আমাদের মতো সীমিত আয়ের মানুষের মাংসের  স্বাদ নেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে ।   পুষ্টি  বঞ্চিত হবে পরিবার ।   ”    বাজার করতে আসা পোশাক নির্মাতা ছনি জানান  প্রতি সপ্তাহে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট পরিবারের জন্য ১.৫/২ কেজি  ব্রয়লার মুরগীর মাংস, ১ ডজন ডিম, কিছু পরিমাণ মাছ নিয়ম করেই  কিনতেন ; ২৪০ টাকা  কেজি প্রতি ব্রয়লার  আর ৫০ টাকা  হালি ডিম হওয়ায় সংসারের  খাবার যোগান নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তিনি ।  বিপত্নীক রাবেয়া  বেগম বলেন – সামান্য টাকায় তার এতিম নাতনীকে নিয়ে চলে তার শেষ জীবন । মুরগীর  মাংস খেতে চয়েছে সে , দাম বৃদ্ধি হওয়ায় আজ কিনতে পারেন নি ।

সরবরাহ সংকটের কারণেই নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে মুরগির বাজার। গত জানুয়ারির শুরু থেকে বাজারে সংকট তৈরি করা হয়েছে। যা কাটিয়ে উঠতে লাগবে প্রায় দুই মাস। এমন তথ্যই জানিয়েছে ওয়ার্ল্ড পোল্ট্রি সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের বাংলাদেশ চ্যাপ্টার। রাজধানী  ঢাকাসহ বগুড়ার  বিভিন্ন বাজারে এক কেজি ব্রয়লার মুরগির দাম  ২৪০  টাকা ছুঁয়েছে। অথচ গত মাসের শেষ দিকেও তা মিলেছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায়। দাম এতটা বাড়ায় সাধারণ ক্রেতার নাগালের বাইরে চলে গেছে মুরগি। এক ক্রেতা বলেন, দেশি ও পাকিস্তানি মুরগি তো আমাদের সামর্থ্যের বাইরে। ব্রয়লার মুরগিই যা কিনতে পারতাম। এখন সেটির দামও চড়া।

এদিকে মুরগির দামের এই বৃদ্ধিকে অস্বাভাবিক বলছেন খোদ বিক্রেতারাও। জামিলনগর  কাচাঁবাজারের   বিক্রেতা  শামীম  বলেন, মুরগির দাম অনেক বেশি ,বচোকেনাও কম  ।  সরবরাহকারী ইসলাম বলেন – কেন যে দিন দিন বাড়তেছে আমাকরে বুঝে আসে না ।

হঠাৎ কেন এমন অসহনীয় হয়ে উঠল বাজার?  সর্বোচ্চ কত টাকা হতে পারে এক কেজি ব্রয়লার মুরগির দাম  । এ প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ পোল্ট্রি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. সুমন হাওলাদার গণমাধ্যমে জানিয়েছেন , ‘এত বাড়ার কথা না। কেন মুরগির দাম এত বেশি বাড়বে? কেন আড়াই শো টাকা কেজি হবে। আমাদের উৎপাদন খরচ সমন্বয় করে ব্রয়লার মুরগির সর্বোচ্চ বাজার দর হওয়া উচিত ২০০ টাকা।’

ওয়ার্ল্ড পোল্ট্রি সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের সাধারণ সম্পাদক মো. মাহবুব হাসান বলেন, ‘মুরগির বাচ্চার দাম কত হবে, সেটি কত টাকায় বিক্রি করা উচিত; খাবারের উৎপাদন খরচ কত, কত টাকায় বিক্রি করা উচিত; ব্রয়লার মুরগির খরচ কত হবে, কত টাকায় বিক্রি করা উচিত; এটি নিয়ে আমরা প্রতি মাসে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরকে প্রতিবেদন দেই। আমরা একটি থার্ড পার্টির মাধ্যমে-যেটিতে প্রফেসর, কৃষকও অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন, তাদের মাধ্যমে এ প্রতিবেদন তৈরি করে থাকি।’তাহলে নিয়ন্ত্রণহীন মুরগির এই দাম বৃদ্ধিকে নিয়ন্ত্রণ করছে কে? যার জবাবে মো. সুমন হাওলাদার বলেন, ‘চাহিদা তেমন একটা বাড়েনি। কিন্তু যে চাহিদা ছিল আমরা সেটিরই যোগান দিতে পারছি না। এর পেছনে কারণ হচ্ছে ডিম-মুরগির ন্যায্য মূল্য না পেয়ে খামারিরা খামার বন্ধ করে দিচ্ছেন।’

তাহলে সত্যিই কি সরবরাহ সংকটে পড়েছে বাজার? ওয়ার্ল্ড পোল্ট্রি সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের তথ্য, সাধারণত ব্রিডার ফার্মগুলো প্রতি সপ্তাহে ১ কোটি ৮০ লাখ ব্রয়লারের বাচ্চা উৎপাদন করে। যা চলে যায় খামারে। সেখান থেকে সেটি ২৮ থেকে ৩৫ দিনের মধ্যে বাজারে চলে আসে।কিন্তু লাগাতার লোকসানে গত দেড় বছরে বহু খামার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাচ্চার দাম নেমে আসে ৫ থেকে ৯ টাকায়। যা উৎপাদন খরচের চেয়ে অন্তত ৩০ টাকা কম। বড় অংকের এই লোকসান ঠেকাতে গত মাসের শুরু থেকে বাচ্চার উৎপাদন নামিয়ে আনা হয় ১ কোটি ৩০ লাখে। অর্থাৎ স্বাভাবিক চাহিদার বিপরীতে প্রতি সপ্তাহে মুরগির উৎপাদন কমতে থাকে ৫০ লাখ করে। বর্তমানে বাজারে এসে এই সংকটেরই মাশুল গুণছেন ভোক্তারা।

মো. মাহবুব হাসান বলেন, ‘এখন বাজার অস্বাভাবিক হয়ে উঠেছে। আমরা দাম বাড়ানোর জন্য অস্বাভাবিকভাবে মুরগির বাচ্চার উৎপাদন কমিয়ে এনেছিলাম। যেন খামারি ও মুরগির বাচ্চা উৎপাদকরাও ভালো দাম পায়।’ তবে মুরগির বাচ্চার উৎপাদন সপ্তাহে ৩০ লাখ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রিডার্স অ্যাসোসিয়েশন। কিন্তু কতো দিনে তার প্রভাব বাজারে পড়বে? এ বিষয়ে মাহবুব হাসান বলেন, ‘বাজারে উৎপাদন বাড়ানোর প্রভাব পড়তে ২ মাস সময় লাগবে। আমরা যদি মুরগির উৎপাদন চাহিদা অনুসারে করতে পারি তাহলে খামারিরা মুরগির দামও পাবেন। আর মুরগির বাচ্চা উৎপাদকরাও দাম পাবে। তখন ভোক্তাদেরও বেশি দামে মুরগি কিনতে হবে না। এখন দাম ২৫ থেকে ৩০ টাকা বেশি। পরে এমন হবে না।’এদিকে বাজারে কঠোর তদারকি করার তাগিদ দিয়ে সুমন হাওলাদার বলেন, ‘যদি পদক্ষেপ না নেয়া হয়, এক মাসের ব্যবধানে যদি ব্রয়লার মুরগির দাম ২৪০ টাকা হয়, তাহলে বছর ব্যবধানে আরও বাড়লে সরকারে পক্ষ থেকে কি ব্যবস্থা নেয়া হবে? সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের দায়িত্ব নিতে হবে। আর যারা দায়িত্ব নেবেন, তাদেরকেও তদারকি করতে হবে।’

অন্যদিকে সংকটে যেন কেউ ভোক্তার পকেট কেটে বাড়তি সুবিধা নিতে না পারে তা নিশ্চিতের তাগিদ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক এম আবু ইউসুফ। তিনি বলেন, ব্রয়লার মুরগি বা ডিমের যে সরবরাহ ব্যবস্থা রয়েছে, সেটি সঠিকভাবে তদারকি করতে হবে।বাজার স্বাভাবিক রাখতে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো যে কন্টাক্ট ফার্মিংয়ে জোর দিচ্ছেন, তা সঠিকভাবে করা হচ্ছে কি-না; তাও খতিয়ে দেখা উচিত বলে মনে করেন খাত সংশ্লিষ্টরা।

বগুড়া শহরের ফতেহ আলী বাজার , রেল লাইন বাজার , খান্দার  কাঁচা বাজার , কাইল্যার বাজার ,   তিনমাথা রেল গেট বাজার , জামিলনগর  আদর্শ কাঁচা বাজার ঘুরে জানা যায়  দাম বৃদ্ধির সাথে পাল্লা দিয়ে  কমেছে  তুলনামূলক চাহিদা । সাধারণ মানুষের  ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে  যাওয়া গরু-খাসির মাংসের বর্তমান বাজারদর যথাক্রমে ৭৫০-১১০০ টাকা কেজি  । নতুন যোগ হলো ব্রয়লারের মাংস  ২৪০টাকা কেজি  আর ডিম ৫০টাকা   হালি । রিক্সাচালক আজগর বলছিলেন গতকাল মুরগী আর  তেল কেনার পর চাল কেনার মতো পর্যাপ্ত টাকা তার  কাছে ছিলো না ; বাধ্য হয়ে তেলের পরিমাণ দোকানীকে বলে কমিয়ে  নেন । ভোক্তারা  মনে করছেন দ্রব্যমে র‌্যের বিশেষ করে চাল, মুরগী ও ডিমের দাম নিয়ন্ত্রণ না করা গেলে সামনের দিনগুলোতে রনরব খাদ্যভাব বা সংকট দেখা দেবে , মানুষের সামনে পণ্য থাকলেও ক্রয় করার ক্ষমতা হয়তো সবার থাকবে না ।