ঢাকামঙ্গলবার , ৩১ জানুয়ারি ২০২৩
  • অন্যান্য

“ এম.পি যাই হোক হামার তো কোন লাভ নাই ”

স্টাফ রিপোর্টার
জানুয়ারি ৩১, ২০২৩ ১:৫৫ অপরাহ্ণ । ৯৭ জন
শহরঘুরে চানাচুর বিক্রি করেন মালতীনগরের ক্ষিতীশ বাবু ।

বগুড়া ৬ সংসদীয় আসন ৪১ । আগামীকাল ১লা ফেব্রুয়ারী উপনির্বাচন । মনোনয়ন ফাড়া কাটিয়ে নির্বাচনের মাঠে প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন ১১ জন প্রার্থী । সাধারণ মানুষের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনার কমতি নেই , আছে উৎকন্ঠাও । কর্মজীবি মানুষের কাছে এ ব্যাপারে  জানতে চাওয়া হলে তাদের নির্লিপ্ত জবাব তাদের  । ভোটের হাওয়া  তাদের ওপর দিয়ে বয়ে যায় ; গায়ে লাগে না ।

উত্তরাঞ্চলের এই জনপদটি’তে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা প্রায়  লাখ দশেক  । বিরোধীদলগুলি ২০১৪ সাধারণ নির্বাচন বর্জন করে তাদের প্রার্থী প্রত্যাহার করে নিলে নূরল ইসলাম ওমর বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় নির্বাচিত হন। ২০১৮ সালে বিএনপি প্রার্থী মির্জা ফখরল ইসলাম আলমগীর বিপুল ভোটে নির্বাচিত হওয়া সত্ত্বেও  নির্ধারিত সময়ে শপথ না নেওয়ায় আসনটি শূন্য হয়ে যায় ফলে ২০১৯সালে ২৪শে জুন অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ এর উপনির্বাচনে আবারও বিএনপি প্রার্থী গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন। বিএনপি এলাকাটি ধরে রাখে। সর্বশেষ , ২০২২ সালে বর্তমান সংসদের বিএনপির দু’জন সংসদ সদস্য যথাক্রমে বগুড়া সদর-৬ আসনের জি এম সিরাজ এবং বগুড়া-৪ সংসদীয় আসনের এমপি মোশাররফ হোসেনের পদত্যাগের ফলে এই দু’টি আসনে উপনির্বাচনের ডামাডোলের সৃষ্টি হয়েছে।

সরকার দলীয় কর্মী -সমর্থকরা বলছেন সংষদীয় গণতন্ত্র চর্চায় বি.এন.পি বিশ^াস কওে না বলেই তাদের সাংসদরা পদত্যাগ করেছেন । সাধারণ মানুষ নয় নিজেদেও ক্ষমতা ভিন্নপথে কুক্ষিগত করতেই তারা পদত্যাগ করে নির্বাচনের দিবাস্বন দেখছে । অপরদিকে , বিএনপি সংশ্লিষ্টরা বলছে দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার সমূহ ফিরিয়ে দিতেই তাদের আন্দোলনের অংশ হিসাবে তাদের সাংসদরা পদত্যাগ করেছে ।

কি বলছে বগুড়া বাসী ?

বগুড়া জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বগুড়া-৪ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ২৮ হাজার ৪৬৯ জন। বগুড়া-৬ আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ১০ হাজার ৭৪৩ জন। বগুড়ার ৪ এবং ৬ আসনের সংসদ প্রতিনিধি কে হবেন তা এখন টক অব দ্যা টাউন !

বগুড়া সদর-৬ আসনে প্রতিদ্বন্দীদের মাঝে সরকারদলীয় আওয়ামি লীগ সমর্থিত রাগেবুল হাসান(রিপু) শোনাচ্ছেন উন্নয়ন আর পরিকল্পনার কথা । আলোচিত সমালোচিত বহিষ্কৃত শহর আওয়ামি লীগের সাবেক  নেতা আব্দুল মাননান আকন্দ পৌরমেয়র পদে এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দীতা  করে সংসদ নির্বাচনে   স্বতন্ত্রপ্রার্থী  হলেও  শক্ত অবস্থানে আছেন । সরকারদলীয় নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগই তার প্রধান বক্তব্য ।   দিচ্ছেন বগুড়া শহর কেন্দ্রীক মানোন্নয়নের বিভিন্ন থিওরি । বিএনপি’র সাংসদেরা যেহেতু পদত্যাগ করেছেন সুতরাং তাদের প্রার্থীও নেই । জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাবেক সাংসদ ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ ওমর তার প্রচারণাও চালাচ্ছেন জোড়েসোড়ে । বগুড়া ৪ এবং ৬ দু’টি আসনেরই প্রতিদ্ব›দ্বী আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমও রয়েছেন আলোচনায় । এছাড়াও আরোও ৯ জন প্রার্থী লড়বেন এই দুটি আসনে ।

প্রার্তী ও তাদের সমর্থক , নেতা-কর্মীরা মাঠে আছেন কিন্তু সব  বগুড়াবাসী  ভোটার  নন । শিক্ষা ও ব্যাবসা-বাণিজ্য বান্ধব শহর হওয়ায় বগুড়ার জনসংখ্যার তুলনায় বোটার সংখ্যা অপ্রতুল , রয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণীপেশার ভাসমান মানুষও । শহরবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায় তারা সকল প্রার্থীদেও পেশা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, সামাজিক মর্যাদা ও ব্যক্তিত্ত¡ সহ নান মাপকাঠিতে তাদেও মাপছেন । শহরের আদিবাসিন্দা কিন্তু শ্রমজীবি এমন মানুষদেও দাবী এই শহরের সংসদ নেতা’র পরিবর্তন নির্ভর করে বিএনপি’র ভোটব্যাংকের ওপর । অনেকে স্মরণ করিয়ে দিলেন বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাজাহানপুর) আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) রেজাউল করিম বাবলু’র কথা । তার সেসময়ের প্রতীক ট্রাকে উঠেছিল অনেক ধানের শীষের সমর্থক ! আর তাতেই আন্ডারডগ থেকে ফেভারিট বাবলু এখন এমপি । বগুড়া সদরে অবশ্য ট্র্যাক প্রতীক পাওয়া প্রার্থী নিজেকে আওয়ামিলীগের কর্মী বলেই পরিচয় দিচ্ছেন , তাহলে ধানের শীষ সমর্থকরা এবারও কি ট্র্যাকে উঠবেন না’কি এন্টি আওয়ামিলীগার হয়ে একতারার সুরে গান গাইবে অথবা লাঙ্গলে শক্তি বাড়িয়ে সাবেক সাংসদ ফিরিয়ে আনবে ?

এমপি কে হবেন প্রশ্ন করা হলে মালতীনগর এলাকার বাসিন্দা সদরের ভোটার চানাচুর বিক্রেতা ক্ষিতীশ বাবু জানান- “ এমপি যাই হোক হামার তো কোন লাভ নাই । ” জলেশ^রীতলা এলাকায় মেয়ে টিউশানী করাতে নিয়ে আসা রাজিয়া বেগম বলেন- “ শহরে  থাকলেও আমাদেও বাড়ী কাহালু । আমাদের ওখানে যারা প্রার্থী তাদের মধ্যে কারও সম্পর্কে আমার তেমন জানা নেই । ভোটের দিন ছুটি পাওয়া যাবে । বাড়িতে গিয়ে ঘুরে আসব । ভোট দিতে যাব কি’না  বুঝতে পারছি না  ” ।  রিক্সাচালক কালু মিয়া বলেন- “ এই কয়দিনের জন্যে ভোট দিয়ে কি হবি , কন তো ? ” ।

বেশীরভাগ ভোটার ও সাধারণ মানুষ বলছেন স্বল্প সময়ের জন্য উপ-নির্বাচন কেবলই নিয়ম রক্ষার বগুড়ার ভাগ্যাকাশে তেমন কোন পরিবর্তন আসবে না; কেবল সংসদ প্রতিনিধি পরিবর্তন হবে । এসব কিছুর উত্তর পাওয়া যাবে আগামীকাল ।