ঢাকারবিবার , ১৬ এপ্রিল ২০২৩
  • অন্যান্য

সুদানে সেনাবাহিনী-আধাসামরিক বাহিনীর তুমুল লড়াইয়ে নিহত ২৭ ও আহত ২০০

অনলাইন ডেস্ক
এপ্রিল ১৬, ২০২৩ ১২:০০ অপরাহ্ণ । ৭৬ জন
ছবি : সংগৃহীত

সুদানে সেনাবাহিনী ও শক্তিশালী আধাসামরিক বাহিনীর মধ্যে শাসন ক্ষমতা হস্তান্তরকে কেন্দ্র করে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে জাতিসংঘের তিন কর্মীসহ অন্তত ২৭ জন নিহত এবং প্রায় ২০০ জন আহত হয়েছেন।

রোববার (১৬ এপ্রিল) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

বিবিসির ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সুদানের সেনাবাহিনী এবং কুখ্যাত আধা-সামরিক বাহিনীর মধ্যে ক্ষমতার লড়াইয়ে আফ্রিকার এই দেশটি কেঁপে উঠেছে। সংঘাতে এখন পর্যন্ত ২৭ জন নিহত এবং প্রায় ২০০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

প্রতিদ্বন্দ্বী এই দুই বাহিনীর লড়াই থেকে অবশ্য রাজধানী খার্তুমে বাসিন্দারা দূরে রয়েছেন এবং সুদানের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ, রাষ্ট্রীয় টিভি ও সেনাবাহিনীর সদর দপ্তর দখলে নিতে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে আধা-সামরিক বাহিনী।

শনিবার রাজধানী খার্তুমে থাকা সেনা সদরদপ্তর, রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ভবন এবং প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেসের দখল নেয়াকে কেন্দ্র করে বিদ্রোহী আধাসামরিক গোষ্ঠী র্যাপিড সাপোর্ট ফোর্সেসের (আরএসএফ) সঙ্গে সেনাবাহিনীর ব্যাপক গুলি বিনিময় হয়। একটি সামরিক ঘাঁটিতে দুই পক্ষের মধ্যে গুলি বিনিময়ের পর জাতিসংঘের তিনজন গুলিবিদ্ধ হন।

 

সুদানের সেনাবাহিনী বলছে, বিমান থেকে আরএসএফের ঘাঁটিতে আক্রমণ চালানো হচ্ছে এবং দেশের বিমানবাহিনী শনিবার রাতে দেশবাসীকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করতে বলেছে। এ ছাড়া আকাশপথে আধাসামরিক বাহিনীর কার্যক্রমও পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

অন্যদিকে রাজধানী খার্তুমের বাসিন্দারা বিবিসিকে তাদের আতঙ্ক ও ভয়ের কথা জানিয়েছেন। এক বাসিন্দা বলেছেন, পার্শ্ববর্তী বাড়ি থেকেই গুলি ছোড়া হচ্ছে। তাতে তারা আতঙ্কের মধ্যে আছেন।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে বেসামরিক সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে উত্তর আফ্রিকার এই দেশটির সেনাবাহিনী। এরপর থেকে সেনাবাহিনীর জেনারেলরা ‘স্বাধীন কাউন্সিল’-এর নামে দেশ পরিচালনা করছিলেন।

এই স্বাধীন কাউন্সিলের ভাইস-প্রেসিডেন্ট হলেন জেনারেল মোহামেদ হামদান দাগালো। অপরদিকে, স্বাধীন কাউন্সিলের প্রধান হলেন জেনারেল আব্দেল ফাতাহ আল-বুরহান।