ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
  • অন্যান্য

ভাষার জন্য যুদ্ধ করেছি; বিদেশি চলচ্চিত্রের জন্য নয় : ঝন্টু

অনলাইন ডেস্ক
ফেব্রুয়ারি ২, ২০২৩ ৯:০৯ পূর্বাহ্ণ । ৬৪ জন

সম্প্রতি দেশের মাটিতে বিদেশি ছবি ‍‍`পাঠান‍‍` আমদানি নিয়ে বেশ সমালোচনা চলছে। শিল্পী সমিতির পক্ষে সাধারণ সম্পাদক নিপুণ দাবি করেছিলেন বিদেশি ছবি আমদানি করতে কোন আপত্তি নেই তবে তাদের সমিতিতে লভ্যাংশের ১০% দিতে হবে। সেটি নিয়েও নায়ক জায়েদ খান চড়াও হয়েছিলেন। তার দাবি নিপুণ চাঁদাবাজি করছেন! পক্ষে কথা বলতে দেখা গেছে চিত্রনায়ক রিয়াজকেও।

পক্ষ-বিপক্ষের তর্কে এবার মধ্যে মুখ খুললেন বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রযোজক, পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু। তিনি সাফ জানিয়েছেন বিদেশি চলচ্চিত্রের আমদানির বিপক্ষে তিনি।

গণমাধ্যম কর্মীদের পরিচালক ঝন্টু বলেন, ‍‍`দেশে কোনভাবেই বিদেশি চলচ্চিত্র আমদানি করা যাবে না। বাংলা ভাষার জন্য যুদ্ধ করে কেন বিদেশি চলচ্চিত্র আমদানি করতে হবে এটাই তার দাবি। এটা হয়তো কথায় কথায় বলেছেন তিনি। সেটি ঢালাও করে গণমাধ্যম প্রচার করেছে। এটা ঠিক নয়। ‍‍`

তিনি আরও বলেন, ‍‍`দেশের চলচ্চিত্র বিদেশ গেলে সেটি আমাদের জন্য গর্বের তবে বিদেশের ছবি নিয়ে এসে এতো গর্ব করার কি আছে। নিপুণ ঠিক বলেনি। আমাদের কি টাকার এতোই অভাব যে তাদের থেকে ১০% নিতে হবে। বরং আমাদের চলচ্চিত্র যেন প্রসারিত হয় সেক্ষেত্রে নিপুণকে কাজ করতে হবে। আমর বিশ্বাস নিপুণ আমাদের চলচ্চিত্র নিয়ে কাজ করবে। এখানে রেষারষিতে বিদেশি চলচ্চিত্র আমাদের মাঝে ঢুকে পড়লে বরং ক্ষতিটা আমাদের চলচ্চিত্র অঙ্গণের হবে। বর্তমানে আমাদের চলচ্চিত্র ভাল যাচ্ছে না। সরকারিভাবে দেশের চলচ্চিত্র নিয়ে এখন ভাবা উচিত বলে মনে করেন এই পরিচালক।

এর আগে বাংলাদেশে হিন্দি সিনেমা আমদানিতে গত শনিবার দুপুরে বিএফডিসিতে জরুরি বৈঠক ডেকেছিল চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন, সাধারণ সম্পাদক নিপুণ, নায়ক রিয়াজ, ফেরদৌস ও নায়ক আলমগীরসহ অনেকে। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন নিপুণ।

সেখানে নিপুণ বলেন, শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে হিন্দি ও বিদেশি সিনেমা আমদানির পক্ষে একটি সিদ্ধান্ত প্রাথমিকভাবে নেওয়া হয়েছে। চলচ্চিত্রের আরও ১৯ সংগঠন সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত বাকি সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে হবে। আমি যেটা চেয়েছি সিনেমা হল মালিকরা বলেছেন যৌক্তিক।

নিপুণের এমন শর্ত দেওয়াকে রীতিমত চাঁদাবাজি বলে মন্তব্য করেছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। তার এমন মন্তব্যের বিপরীতেই কথা বলেছেন নিপুণ। বলেছেন, এই টাকা যদি আমার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে নিতাম তাহলে সেটা চাঁদাবাজি বলতে পারতেন। টাকা থাকবে শিল্পী সমিতির ফান্ডে। আর আমি শিল্পী সমিতি থেকে কিছু নিতে আসিনি। এসেছি কিছু দিতে। ইতোমধ্যে শিল্পীরা সে প্রমাণ পাচ্ছে।