ঢাকাসোমবার , ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
  • অন্যান্য

নোয়াখালীতে ভোটের রাতে দলবদ্ধ ধর্ষণের মামলার রায় আজ, বিশেষ নিরাপত্তা

অনলাইন ডেস্ক
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৪ ১১:১১ পূর্বাহ্ণ । ২৫ জন

রায় ঘোষণা উপলক্ষে আদালত প্রাঙ্গণে নেওয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থা। বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে আদালত এলাকায়। সকাল দশটার দিকে নোয়াখালী জেলা কারাগার থেকে মামলার ১৫ আসামিকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে জেলা জজ আদালতের হাজতখানায় আনা হয়। তখন হাজত প্রাঙ্গণে আসামিদের স্বজনদের ভিড় ও কান্নাকাটি করতে দেখা গেছে।

আদালতে সকালেই মামলার বাদী স্বামীসহ হাজির হয়েছেন নির্যাতনের শিকার সেই নারী। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ‘তারা (আসামিরা) সেই দিন মরা গরুর মতো আমাকে ছিঁড়ে খেয়েছে। আমাকে মৃত ভেবে তারা সেদিন ফেলে গিয়েছিল। সেই নির্যাতনের কথা দেশবাসী সবাই জানেন। আমি সেই নির্যাতনের ন্যায়বিচার চাই। এ ছাড়া আমার আর কিছু চাওয়ার নাই।’

আদালতের স্টেনোগ্রাফার মো. শামছুদ্দিন আজ সকালে প্রথম আলোকে বলেন, আলোচিত এই মামলার রায় উপলক্ষে আদালত প্রাঙ্গণে বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তারা আগেই সংশ্লিষ্ট সকলকে চিঠি দিয়ে বিষয়টি অবগত করেছেন। সকালে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আসামিদের কারাগার থেকে কোর্ট হাজতে আনা হয়েছে। বেলা ১১টায় রায় ঘোষণা করবেন বিচারক।

ওই ঘটনার পরদিন (৩১ ডিসেম্বর) নির্যাতনের শিকার নারীর স্বামী বাদী হয়ে চর জব্বর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে মামলার তদন্ত শেষে সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কার হওয়া প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিন মেম্বারসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের ২৭ মার্চ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের সহকারী কৌঁসুলি সালেহ আহমদ সোহেল খান প্রথম আলোকে বলেন, আলোচিত ওই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ ২৩ জন সাক্ষী উপস্থাপন করেছে। মামলায় রুহুল আমিন মেম্বারসহ ১৬ জন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৫ জন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। একজন আসামি-মো. মিন্টু ওরফে হেলাল (২৮) ঘটনার পর থেকে পলাতক আছেন।