ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
  • অন্যান্য

টাকা পাচারকারীরা শনাক্ত হচ্ছেন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

admin
ফেব্রুয়ারি ৯, ২০২৩ ১০:৩০ পূর্বাহ্ণ । ৬৫ জন
বৃহস্পতিবার রাজধানীর মালিবাগে অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ।

যারা বিদেশে টাকা পাচার করেছেন, বিভিন্ন দেশে সম্পদ গড়েছেন তাদের শনাক্ত করার কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, যে টাকা পাচার করবে, তাকেই আইনের আওতায় আনা হবে।

আজ বৃহস্পতিবার সিআইডি সদর দপ্তরে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ ও ফিন্যান্সিয়াল ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন প্রশিক্ষণ কোর্স সমাপনীর সনদ বিতরণে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সিআইডি প্রধান মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আমিনুল ইসলাম খান, পুলিশের আইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন, এসবি প্রধান মনিরুল ইসলাম অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

পরে সাংবাদিকরা মন্ত্রীর কাছে জানতে চান, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশিরা অবৈধ টাকা পাচার করে সম্পদ গড়েছেন বলে গত কয়েক বছর ধরেই শোনা যাচ্ছে। এ বিষয়ে সরকার টাকা ফেরত আনা কিংবা তাদের শনাক্ত করার বিষয়ে কী উদ্যোগ নিয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, শনাক্তকরণের প্রক্রিয়া কিন্তু চালু রয়েছে, এটা বন্ধ নেই। যেই অবৈধভাবে বিদেশে টাকা পাচার করছে, আমরা তাকেই শনাক্ত করছি। জোর গলাতে বলতে পারব না, কে কত টাকা নিয়েছে, কীভাবে নিয়েছে। তদন্ত চলছে। সেভাবেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকে রিজার্ভ চুরির ঘটনার পরে বর্তমানে এখন কী আমাদের সক্ষমতা হয়েছে এমন ধরনের ঘটনা মোকাবিলা করার। এ ছাড়া সেই আলোচিত মামলার চার্জশিট দ্রুতই জমা দেওয়ার কথা ছিল।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। তবে ওই ঘটনায় সংশ্লিষ্ট দুই দেশের তদন্ত রিপোর্ট এখনো পায়নি তদন্তকারী সংস্থা। এজন্য মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে অপেক্ষা করছে তারা। ওই দুই দেশের মতামত এলেই চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে।

অপরদিকে , বৃহস্পতিবার রাজধানীর মালিবাগে অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল হুঁশিয়ারি বলেন-  আন্দোলন করার নামে কেউ যদি রাস্তায় বসে পড়ে তাহলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে বলে  দিয়েছেন ।

১১ ফেব্রুয়ারি বিএনপি-আওয়ামী লীগের কর্মসূচি ও জামায়াতের অনুমতি চাওয়াসহ সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, বিএনপি একটি রাজনৈতিক দল। তারা নির্বাচনের আগে অনেক কথা বলবে এটাই স্বাভাবিক। পাশাপাশি অন্য দলও আছে তারাও রাজনৈতিক কর্মসূচি দিতে পারে।

‘আজকে যদি জনগণের নিরাপত্তার কথা বলেন, তাহলে আমি আপনাদের (গণমাধ্যমের) মাধ্যমে আহ্বান রাখব তারা যেন জনগণের ভোগান্তি সৃষ্টি না করেন, রাস্তাঘাট বন্ধ না করেন, নগরবাসীর চলাচল বিঘ্নিত না করেন।’

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, জনগণ বিরক্ত হয়, এমন কোনো কাজ যেন তারা না করেন। তারা রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করবে, এ নিয়ে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। তবে যদি আন্দোলনের নামে ভাঙচুর করেন, অগ্নি সংযোগ করেন, কিংবা বসে থেকে রাস্তাঘাট বন্ধ করার চেষ্টা করেন তাহলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যা করার তাই করবে।