ঢাকাসোমবার , ১৩ মার্চ ২০২৩
  • অন্যান্য
আজকের সর্বশেষ সবখবর

একজন স্বৈরশাসকের কন্যা কীভাবে ২৪০ মিলিয়ন ডলারের সম্পত্তি গড়ে তুলেছেন ?

অনলাইন ডেস্ক
মার্চ ১৩, ২০২৩ ৭:৫৩ পূর্বাহ্ণ । ৫৯ জন
গুলনারা করিমোভা একজন পপ তারকা এবং কূটনীতিক

একজন স্বৈরশাসকের কন্যা যিনি একাধারে একজন পপ তারকা এবং কূটনীতিক। তিনি লন্ডন থেকে হংকং পর্যন্ত  প্রায় ২৪০ মিলিয়ন ডলারের  সম্পত্তি গড়ে তুলেছেন। উজবেক প্রেসিডেন্টের কন্যা গুলনারা করিমোভার কথা বলছি। ফ্রিডম ফর ইউরেশিয়ার সমীক্ষা বলছে, ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত তহবিল দিয়ে যুক্তরাজ্যের একাধিক কোম্পানির সাহায্য নিয়ে গুলনারা করিমোভা একের পর এক বাসা এবং জেট কিনেছেন। এই কাজে তাঁকে সাহায্য করেছে লন্ডন এবং ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জের অ্যাকাউন্টিং সংস্থাগুলি। এই বিষয়টি অবৈধ সম্পদ মোকাবেলায় যুক্তরাজ্যের প্রচেষ্টা সম্পর্কে নতুন প্রশ্ন উত্থাপন করে। বৃটিশ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ করা হয়েছে যে তারা অর্থ পাচারের জন্য  বিদেশে আসা অপরাধীদের যুক্তরাজ্যের সম্পত্তি ব্যবহার করা থেকে আটকাতে যথেষ্ট কাজ করছে না।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে করিমোভা  সহজেই  যুক্তরাজ্যের সম্পত্তি পেয়েছিলেন তা সত্যিই “উদ্বেগজনক”। এমনকি  যুক্তরাজ্যের যে কোম্পানিগুলি উজবেক প্রেসিডেন্টের কন্যাকে  এই পরিষেবাগুলি প্রদান করেছে তাদের কাউকেই তদন্ত বা জরিমানা করা হয়নি। কিছু সময়ের জন্য গুলনারা করিমোভাকে  তার বাবা ইসলাম করিমোভের উত্তরসূরি হওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল, যিনি ১৯৮৯ সাল থেকে ২০১৬ সালে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত উজবেকিস্তানে  রাষ্ট্রপতি পদে ছিলেন । কিন্তু গুলনারা শাসনভার কাঁধে তুলে  নেবার পরিবর্তে  “গুগুশা” নামের  পপ ভিডিওতে  মুখ দেখতে শুরু করেন।

 সেই সঙ্গে একটি জুয়েলারি কোম্পানি চালাতেন  এবং স্পেনে রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। প্রসিকিউটররা তাকে অপরাধী  হিসেবে অভিযুক্ত করে।  কারণ তিনি  যুক্তরাজ্য, রাশিয়া এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত সহ ১২ টি দেশে  প্রায় ১ বিলিয়ন ডলারের অবৈধ  সম্পদ তৈরী করেছেন ।ফ্রিডম ফর ইউরেশিয়া রিপোর্টের একজন গবেষক এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ফেলো টম মেইন বলেছেন -”করিমোভার  মামলাটি সর্বকালের বৃহত্তম ঘুষ এবং দুর্নীতির মামলাগুলির মধ্যে একটি। ”করিমোভা এবং তার সহযোগীরা ইতিমধ্যে দুর্নীতির তহবিল দিয়ে অর্জিত কিছু সম্পত্তি বিক্রি করেছেন বলে অভিযোগ।

ফ্রিডম ফর ইউরেশিয়া যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড, ফ্রান্স, দুবাই এবং হংকং সহ বিভিন্ন দেশে তাঁর অন্তত ১৪ টি অবৈধ সম্পত্তি শনাক্ত করেছে এবং  জমির রেজিস্ট্রির  রেকর্ড নিয়ে গবেষণা করেছে। ১৪ মার্চ তাঁরা গোটা রিপোর্টটি প্রকাশ করবে ” Who Enabled the Uzbek Princess?” শিরোনামে। লন্ডনে এবং এর আশেপাশে গুলনারার কেনা পাঁচটি সম্পত্তির উপর ফোকাস করে দেখা গেছে – বাকিংহাম প্যালেসের ঠিক পশ্চিমে বেলগ্রাভিয়ার তিনটি ফ্ল্যাট কিনেছেন তিনি যার মূল্য ৫০ মিলিয়ন পাউন্ড, এছাড়াও মেফেয়ারে একটি বাড়ি সারে ম্যানশন এবং একটি ব্যক্তিগত বোটিং লেক আছে তাঁর যার মূল্য ১৮ মিলিয়ন পাউন্ড। করিমোভাকে আটক করার আগে ২০১৩ সালে বেলগ্রাভিয়ার দুটি ফ্ল্যাট বিক্রি করা হয়েছিল। গুরুতর জালিয়াতির দায়ে ২০১৭ সালে, মেফেয়ারের বাড়ি  সারে ম্যানশন এবং বেলগ্রাভিয়ার একটি  ফ্ল্যাটকে সিজ করা হয়।

ফ্রিডম ফর ইউরেশিয়ার প্রতিবেদনে লন্ডন এবং ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জের সংস্থাগুলির নামও উল্লেখ করা হয়েছে  ,যারা  করিমোভা বা তার সহযোগীদের  সম্পত্তির পাশাপাশি ব্যক্তিগত জেটলাইনার কিনতে  প্রেসিডেন্ট কন্যাকে সাহায্য করেছিলো ।   করিমোভার বয়ফ্রেন্ড  রুস্তম মাদুমারভ, এবং অন্যদের  তার সহযোগী বলে অভিযোগ করা হয়েছে।
করিমোভাকে  যুক্তরাজ্যের দুটি কোম্পানি অ্যাকাউন্টেন্সি পরিষেবাগুলি প্রদান করেছিল সেগুলি হলো –  প্যানালি লিমিটেড এবং ওডেনটন ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড। পূর্বে লন্ডনের নিউ অক্সফোর্ড স্ট্রিটে অবস্থিত SH Landes LLPনামক  একটি ফার্ম গোটা প্রক্রিয়াটিতে সহায়তা করে  ।২০১০ সালের জুলাইয়ের শেষের দিকে, SH Landes অন্য কোম্পানি  অধিগ্রহণ করতে চেয়েছিলো ।উদ্দেশ্য ছিল প্রায় ৪০ মিলিয়ন ডলারের    বিনিময়ে একটি প্রাইভেট জেট কেনা, যার মালিক হবেন  করিমোভার বয়ফ্রেন্ড মাদুমারভ  । যখন তার তহবিলের উত্স সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল তখন SH Landes কৌশলে  প্রশ্নটি এড়িয়ে যায়।

 

লন্ডন-ভিত্তিক সংস্থাটি পরে বলেছিল যে মাদুমারভের সম্পদ আংশিকভাবে উজবেকিস্তানভিত্তিক একটি মোবাইল ফোন কোম্পানি, Uzdunrobita  থেকে এসেছে।করিমোভার সাথে কোম্পানির সম্ভাব্য যোগসূত্র নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে। মস্কো টাইমসের একটি নিবন্ধে অভিযোগ করা হয়েছিল যে ২০০৪ সাল পর্যন্ত  করিমোভা জালিয়াতি করে Uzdunrobita থেকে ২০ মিলিয়ন ডলার আত্মসাৎ করেছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে , উচ্চ-মূল্যের এবং একটি উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ  লেনদেনের আগে SH Landes -র  তহবিলের উৎস সম্পর্কে যথাযথ তথ্য সংগ্রহ করা উচিত ছিল। SH Landes  প্যানালি লিমিটেডের জন্য ২০১২ সালের আর্থিক বিবৃতিও জমা দিয়েছে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে যে সেপ্টেম্বর ২০১৩ পর্যন্ত   করিমোভার ঘনিষ্ঠ সহযোগী  গায়ানে আভাকিয়ান প্রয়োজনীয় পেপারে স্বাক্ষর করতেন ৷আগের বছর, বিবিসি প্রকাশ   করেছিল যে আভাকিয়ান  উজবেকিস্তানে একটি উচ্চ-স্তরের মাল্টি-মিলিয়ন ডলার জালিয়াতির  সঙ্গে যুক্ত । SH Landes- এর হয়ে বিবিসিকে দেওয়া এক বিবৃতিতে, স্টিভেন ল্যান্ডেস বলেছেন: “SH Landes LLP  কখনো গুলনারা করিমোভার  সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল না । SH Landes LLP  রুস্তম মাদুমারভের পক্ষে কাজ করেছিল। SH Landes LLP তার সমস্ত ক্লায়েন্টদের প্রতি যথাযথ দায়িত্ব পালন করে  এবং প্রাসঙ্গিক নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষকে পুরো লেনদেন নিয়ে অবহিত করা হয়েছে। ”ফ্রিডম ফর ইউরেশিয়ার টম মেইন বলেছেন যে ”এতো  সহজে করিমোভা যুক্তরাজ্যের বিশাল সম্পত্তি ক্রয় করতে পেরেছিলেন তা সত্যিই  উদ্বেগজনক। অন্যান্য দেশ ইতিমধ্যে তার মালিকানাধীন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং সম্পত্তিগুলি হিমায়িত করেছে।   যুক্তরাজ্যের সেই কাজ করতে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সময় লেগেছে ”।