ঢাকাবুধবার , ২৬ জুলাই ২০২৩
  • অন্যান্য

সেই ভারতীয় নারীকে বিয়ে করলেন পাকিস্তানি যুবক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
জুলাই ২৬, ২০২৩ ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ । ৩৫ জন
প্রেমের টানে পাকিস্তানে পাড়ি জমানো ভারতীয় নারী ও পাকিস্তানী যুবক

প্রেমের টানে পাকিস্তানে পাড়ি জমানো ভারতীয় নারীকে অবশেষে বিয়ে করলেন পাকিস্তানি যুবক নসরুল্লাহ। মঙ্গলবার স্থানীয় জেলা ও দায়রা জজ আদালতে তারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন বলে একজন সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতীয় নারী বিয়ের আগে হিন্দু থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম হয়েছেন। আঞ্জু থেকে নাম পরিবর্তন করে হয়েছেন ফাতিমা।

পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়ার আপার দির জেলার মোহর সিটি থানার সিনিয়র অফিসার মুহাম্মদ ওয়াহাব বিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, আঞ্জু হিন্দু থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম হওয়ার পর বিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

পুলিশ জানায়, বিয়ের সময় নসরুল্লাহর পরিবারের সদস্য, পুলিশ সদস্য ও আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

মালাকান্দ জেলার উপমহাপরিদর্শক নাসির মাহমুদও বিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, আদালত থেকে নিরাপত্তা দিয়ে তাদের বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এর আগে পাকিস্তানে পাড়ি জমানো বিবাহিত ভারতীয় নারী আঞ্জুকে বিয়ে করবেন না বলে জানিয়েছিলেন পাকিস্তানি যুবক নসরুল্লাহ। তার সঙ্গে কোনো প্রেমের সম্পর্ক নেই দাবি করে তিনি বলেছেন, তাদের বিয়ের কোনো পরিকল্পনা নেই।

৩৪ বছর বয়সি আঞ্জু উত্তরপ্রদেশের কাইলর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি রাজস্থানের আলওয়ার জেলায় স্বামী ও দুই সন্তানের সঙ্গে বসবাস করতেন। সম্প্রতি তিনি নসরুল্লাহর সঙ্গে দেখা করতে পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়ার আপার দির জেলায় যান।

রোববার (২৩ জুলাই) পুলিশের বরাত দিয়ে এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২৯ বছর বয়সি নসরুল্লাহ মেডিকেলে কাজ করেন। ২০১৯ সালে তাদের ফেসবুকে পরিচয় হয়। এর পর তারা একে অপরের বন্ধু হয়ে ওঠেন। সেখান থেকে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন দুজন। চলতি সপ্তাহে নসরুল্লাহর সঙ্গে দেখা করতে পাকিস্তানে পাড়ি জমান আঞ্জু।

সোমবার (২৪ জুলাই) এনডিটিভির আরেক প্রতিবেদনে বলা হয়, নসরুল্লাহ পিটিআইকে টেলিফোনে বলেছেন, ‘আঞ্জু পাকিস্তানে বেড়াতে এসেছেন। আমাদের বিয়ে করার কোনো পরিকল্পনা নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘তিনি তার ভিসার মেয়াদ শেষ হলেই আবার দেশে ফিরে যাবেন।’ সঙ্গে এও জানান যে, আঞ্জু তার পরিবারের নারী সদস্যদের সঙ্গে তাদের বাড়িতে আলাদা একটি কক্ষে থাকছেন।

নসরুল্লাহ পাকিস্তানের শেরিঙ্গাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক পাস করেছেন। পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে তিনি সবার ছোট। নসরুল্লাহ এরই মধ্যে আঞ্জু ও তার মধ্যকার সম্পর্ক নিয়ে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছে এক কপি এফিডেভিট জমা দিয়েছেন। তাতে তিনি জানিয়েছেন, তারা একে অপরের বন্ধু। তাদের মধ্যে কোনো প্রেমের সম্পর্ক নেই। আগামী ২০ আগস্ট আঞ্জু ভারতে ফিরে যাবেন।