ঢাকাবুধবার , ১৮ অক্টোবর ২০২৩
  • অন্যান্য

কাল হয়নি আজ সাকিবের স্ক্যান, পুনের প্রথম ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ এর অপেক্ষা!

স্পোর্টস ডেস্ক
অক্টোবর ১৮, ২০২৩ ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ । ৪২ জন

মুম্বই-পুনে হাইওয়ের পাশে গ্রামের নাম গাহুঞ্জে। দূর রাস্তা থেকে ফ্লাইড লাইট জানান দেয় এখানেই মহারাষ্ট্র ক্রিকেট স্টেডিয়াম। ভারতের প্রাচীন এই শহরে বাংলাদেশ দল আজ মাঠে নামবে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে। প্রতিপক্ষ ভারত। কিন্তু পুনে শহর থেকে গ্রাম ঘুরে বেড়ালে কোথায় খুঁজে পাওয়া যাবে না বিশ্বকাপের উত্তেজনা। অথচ এবারই প্রথম বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচ এই মাঠে গড়াবে। তবে দুই দলের লড়াই যে উত্তাপ ছড়াবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এমন ম্যাচে অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের অপেক্ষাতে বাংলাদেশ দল। ২০১২তে এই মাঠে কেকেআরের হয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচও হয়েছিলেন তিনি। ইনজুরি কাটিয়ে ভারতের বিপক্ষে খেলবেন কিনা তা নিয়ে যখন প্রশ্ন তখন সাকিব ব্যাটিং অনুশীলন করে জানিয়ে দিলেন তিনি প্রস্তুত।

এখানে এসে তিন দিন বিশ্রামে ছিল টাইগাররা। গতকালই প্রথম অনুশীলনে আসে লড়াইয়ের ময়দানে। দুপুর ২টায় গোল হয়ে দাঁড়িয়ে কোচ হাথুরুসিংহের নির্দেশনা শোনেন তারা। এরপর সাকিবকে দেখা যায় মাঠে স্ট্রেচিং ও পরে ফুটবল খেলতে। তবে তার হাঁটাচলা একটু অস্বাভাবিক মনে হচ্ছিলো। কিন্তু হঠাৎ করেই হাতে তুলে নেন ব্যাট। শুরুতে নকিং এরপর পেসার ও স্পিনারদের বিপক্ষে নেটে ব্যাটিং করেন। এদিন তার অনুশীলন শেষে স্ক্যান করানোর কথা ছিল, কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। তার বর্তমান অবস্থান নিয়ে দলের একটি টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন দৈনিক মানবজমিনকে বলেন, ‘সাকিবের স্ক্যান আজ (গতকাল) করানোর কথা থাকলেও সেটি হয়নি। আমরা আজ সেটি করবো। তবে অনুশীলনের আগে না পরে তা এখনই বলতে পারছি না। এটি ফিজিও সিদ্ধান্ত নিবে।’

 

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে ব্যাট করার সময় উরুর পেশিতে টান লাগে সাকিবের। এরপর থেকে শঙ্কা তিনি ভারতের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে খেলতে পারবেন না। তবে গতকাল তার অনুশীলনে সেই শঙ্কা উড়ে গেছে। এখন খেলার জন্যও প্রস্তুত। তবে তার যে ইনজুরি সেই কথা বিবেচনা করে টিম ম্যানেজমেন্ট কোনো ধরনের ঝুঁকি নিতে চায়নি। তবে সাকিব মরিয়া খেলার জন্য। যদিও এখনো ক্ষীণ শঙ্কার কথাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। ম্যাচের দিন একাদশে নাম থাকার পরই অনেকেই বিশ্বাস করতে চাইছেন না সাকিব খেলবেন। এ নিয়ে সবচেয়ে বেশি আগ্রহ ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের। প্রায় সারাদিনই তাদের প্রশ্ন সাকিব খেলবে তো! এর কারণটাও সবার জানা, টাইগার অধিনায়কের খেলা মানে ম্যাচের পরিস্থিতি বদলে যেতে পারে যেকোনো সময়। পুনের উইকেটে বাংলাদেশ দলের সদস্যরা নতুন হলেও সাকিব তা ভালো করেই চিনেন। এখানে তিনি খেলেছেন আইপিএলের ম্যাচ। অন্যদিকে গতকাল অনুশীলনের পর সাকিবের অবস্থা কেমন মনে হয়েছে তা নিয়ে সুজন বলেন, ‘ও অনুশীলনের পর ব্যথা আছে এমন কোনো কিছু বলেনি। এমনকি অস্বস্তি বোধ করেছে এমনটাও জানায়নি। তারপরও ব্যথা তো টুকটাক থাকবেই। আমরা ম্যাচের দিন পর্যন্ত ওকে পর্যবেক্ষণে রাখবো। তবে আশা করি সাকিব খেলতে পারবে।’

১১ বছর আগে সাকিব আল হাসান মহারাষ্ট্র ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার জিতেছিলেন। সেই ম্যাচে ব্যাট হাতে ৪২ ও বল হাতে ১৮ রানে ২ উইকেট নিয়েছিলেন টাইগার অধিনায়ক। তবে সেটি ছিল টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে। তাতে কি এই মাঠে তার অভিজ্ঞতা দলকে দিতে পারে পথনির্দেশনা। তাই সাকিবের জন্য অপেক্ষা তো করতেই হবে। সুজন বলেন, ‘সাকিব ছাড়া এই মাঠে দলের আর কেউ খেলেনি। সে কিন্তু এই মাঠে খেলে ম্যান অব দ্য ম্যাচও হয়েছিল। ওর অভিজ্ঞতা তো আমাদের জন্য অনেক বেশি প্রয়োজন।’

অন্যদিকে মহারাষ্ট্র স্টেডিয়ামে নিজেদের প্রথম বিশ্বকাপ ম্যাচের জন্য এখনো পুরোপুরি তৈরি হতে পারেনি। এখনো সেখানে চলছে সাজসজ্জার কাজ। হাইওয়ে থেকে সার্ভিস রোড ধরে স্টেডিয়ামের গেটে পৌঁছতে হাঁটতে হবে অন্তত দুই কিলোমিটার। বিশ্বকাপের ম্যাচের জন্য স্থানীয় গ্রামবাসীদের কাছ থেকে স্টেডিয়াম সংলগ্ন ২০ একর জমিও মোটা টাকায় ভাড়া নিয়েছে মহারাষ্ট্র ক্রিকেট এসোসিয়েশন। কারণ, পার্কিং স্পেস। পুনে বা মুম্বই থেকে যারা গাড়িতে করে ম্যাচ দেখতে আসবেন, স্টেডিয়ামের পার্কিং স্পেসে তাদের সবাইকে জায়গা দেয়া অসম্ভব। ২০১২ সালে তৈরি হয়েছিল এই স্টেডিয়াম। যেখানে এইবার প্রথম হবে বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচ।