ঢাকামঙ্গলবার , ৩১ অক্টোবর ২০২৩
  • অন্যান্য

অবরোধে বগুড়ায় পুলিশ বিএনপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ, রণক্ষেত্রে পরিণত

স্টাফ রিপোর্টার
অক্টোবর ৩১, ২০২৩ ৪:০৪ অপরাহ্ণ । ৪০ জন

বিএনপির ডাকা তিন দিনের অবরোধের প্রথম দিনেই বগুড়ায় অগ্নিসংযোগ, গাড়ি ভাঙচুর ও পুলিশের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া হয়েছে। মহাসড়কে সকাল থেকেই পুলিশ র‍্যাব, বিজিবি টহল চলছে। বাস টার্মিনালগুলো থেকে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ছাড়া তেমন যানবাহন চলাচল করছে না।
সকালে শহরের বনানী বাইপাস সড়ক এলাকায় ছাত্রদল যুবদলের নেতাকর্মীরা ঢাকা- মহাসড় অবরোধ করে  ক্রিকেট খেলা শুরু করে। এ সময় পুলিশ  অবরোধকারীদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। এতে শুরু হয় পুলিশ অবরোধ কারীদের মধ্যে ধোয়া পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষ বিস্ফোরণ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে।
এ সময় আওয়ামী লীগের কিছু নেতাকর্মী মোটরসাইকেল নিয়ে মিছিল করতে করতে ওই এলাকায় আসলে তাদের সাথেও সংঘর্ষ  হয় বিএনপি নেতা কর্মীদের। এ সময় তিনটি মোটরসাইকেল অগ্নি সংযোগ করা হয়। পুলিশ দুজনকে আটক করেছে। তবে আটককৃতরা দাবি করেছেন তারা ট্রাক শ্রমিক। পঞ্চগড় থেকে স্থানীয় একটি কারখানায় মালামাল নিয়ে এসেছিল।
অপরদিকে বগুড়া রংপুর মহাসড়কের মাটিডালি এলাকায় জেলা বিএনপির সভাপতি রেজাউল করিম বাসার নেতৃত্বে মহাসড়ক অবরোধ করে রাখা হয়। ঐ এলাকায় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটলেও সেখান থেকে তিন কিলোমিটার দূরে বাঘোপাড়া এলাকায় জামাত-শিবির নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয় এবং একটি কুরিয়ার সার্ভিস কাবার ভ্যানে অবরোধকারীরা অগ্নিসংযোগ করে।
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে।
এদিকে বিজিবির পাহারায় মহাসড়কে আটকে থাকা কয়েকশো যান বহন চলাচলের গন্তব্য যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। এখনো বনানী এবং বাঘোপাড়া এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে পুলিশ এবং বিএনপি নেতা কর্মীরা দুই প্রান্তে অবস্থান করছে।
অপরদিকে সকাল থেকে ছাত্রলীগ যুবলীগের নেতা-কর্মীরা লাঠি সোঁটা হাতে শহরের টেম্পল রোডে দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয় এবং সাত মাথায় মুজিব মঞ্চে জেলা আওয়ামী লীগ শান্তি সমাবেশ করে।